মে দিবস: ইতিহাস, তাৎপর্য, উক্তি,শুভেচ্ছা বার্তা

আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস যা সবার কাছে মে দিবস নামে পরিচিত। প্রতি বছর পহেলা মে আন্তর্জাতিক মে দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। এই দিনটিতে বিভিন্ন দেশের শ্রমিক ইউনিয়ন উড়ো যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করে।এই প্রতিবেদনে মে দিবসের তাৎপর্য, মে দিবসের স্লোগান ও মহান মে দিবসের শুভেচ্ছা নিয়ে আলোচনা করা হবে।  আপনি যদি মেয়ে দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে এই নিবন্ধটি মনোযোগ দিয়ে পড়বেন।

মে দিবস ইতিহাস

প্রতি বছর পহেলা মেয়ে আন্তর্জাতিক মে দিবস হিসেবে বিশ্বের ৮০ টিরও বেশি দেশ একযোগে পালন করে আসছে। মে দিবস শ্রমিকদের একটি স্মরণীয় দিন। ১৮৮৬ সালের মে মাসের আমেরিকার শিকাগো শহরে শ্রমিকেরা তাদের শ্রমঘণ্টা নির্ধারণের জন্য এবং ন্যায্য মজুরির জন্য রাস্তায় নামে। কিন্তু শিল্পপতিরা ও তৎকালীন প্রশাসন এই ন্যায্য আন্দোলন কে প্রতিহত করার জন্য কঠোর প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়। এর ফলে প্রশাসনের গুলিতে কয়েক জন শ্রমিকের নির্মম মৃত্যু ঘটে। ফলে শিকাগো শহরের রাজপথ শ্রমিকদের রক্তে রঞ্জিত হয়। শ্রমিকদের কন্ঠ করে দেওয়ার জন্য পুঁজিবাদী সরকার ও তার প্রতিনিধিরা সম্ভাব্য সকল ন্যক্কারজনক পথ অবলম্বন করেন। শ্রমিক নেতাদের বিভিন্ন হয়রানিমূলক মামলা দিয়ে ফাঁসি দেওয়া হয়। এতকিছুর পরও অদম্য শ্রমিকদের আন্দোলন থেকে সরাতে পারেনি তৎকালীন পুঁজিবাদী সরকার। অবশেষে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য সুযোগ-সুবিধাগুলো আদায় করে নিতে সক্ষম হয়।তীব্র আন্দোলনের মুখে পড়ে শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয় সরকার। এরপর ১৮৮৯ সালে প্যারিসে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে ১ মে-কে ‘মে দিবস’ হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।শ্রমিকদের দাবি মাত্র একদিনেই পূরণ হয়নি। বাস্তবে, এটি কয়েক বছর সময় নিয়েছিল এবং প্রতিবাদে প্রচুর রক্তক্ষয়ও হয়েছিল। এটি কেবল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই নয়, পাশাপাশি জার্মানি, ইংল্যান্ড এবং ফ্রান্সেও হয়েছিল।এই আন্দোলনে প্রাণ বিসর্জন দেওয়া শ্রমিকদের উদ্দেশ্যেই পহেলা মে আন্তর্জাতিক মে দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

মে দিবস সম্পর্কে ৫ তথ্য

  • ১৮৮৬ সালের ১ মে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের শ্রমিকেরা আট ঘণ্টা কর্মদিবসের দাবিতে নিজেদের রক্ত দিয়েছিলেন। সেই প্রেক্ষাপটেই আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস তথা মে দিবস পালন শুরু হয়।
  • ১৮৮২ সালের ৫ সেপ্টেম্বরেও যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক তাঁদের অধিকার নিশ্চিতের দাবিতে নিউইয়র্কে শহরে সমাবেশ করেছিলেন।
  • যুক্তরাষ্ট্রে আন্দোলন ও হতাহতের ঘটনা ঘটলেও শ্রমিক দিবস পালনের সিদ্ধান্ত হয় ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে, সেটা ১৮৮৯ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক কংগ্রেসে।
  • বিশ্বের ৯০টি দেশে সরকারিভাবে মে মাসের প্রথম দিনটিকে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে।
  • ১ মে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের শ্রমিক আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসের উৎপত্তি হলেও যুক্তরাষ্ট্রে শ্রমিক দিবস হিসেবে পালিত হয় সেপ্টেম্বর মাসের প্রথম সোমবার।

মে দিবসের তাৎপর্য

মেয়ে দিবস এই পুঁজিবাদী সমাজের তথা শ্রমজীবী মানুষের খুবই গুরুত্বপূর্ণ তাৎপর্য বহন করে। দেশ সমাজ গঠনে শ্রমিকদের অবদানের কথা অনস্বীকার্য। এই অবদানকে অস্বীকার করে একটি দেশ কখনোই সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে না। মানুষ কখনই মানবিক হতে পারবেনা শ্রমিকদের অবদানের কথা অস্বীকার করে। নিচে কিছু মে দিবসের তাৎপর্য পয়েন্ট উল্লেখ করলাম।

  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ-ভারত সহ পৃথিবীর অধিকাংশ দেশে এদিন সাধারন ছুটি থাকে।
  • ১৯৩০ সালে প্রথমবারের মতো পহেলা মেয়ে ভারতের চেন্নাইয়ে মে দিবস হিসেবে পালন করা হয়।
  • ১৯৪৮ সাল থেকে সরকারিভাবে ভারতের সারাবিশ্বের শ্রমিকদের প্রতি সম্মান জানাতে পহেলা
  • মে বাধ্যতামূলক সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়।
  • এই দিনে দেশের প্রতিটি বিভাগের শ্রমিকরা সম্মানিত হন। দেশ গঠনে তাদের অবদান স্বীকার করা হয়।

মে দিবসের উক্তি

মে দিবস পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম একটি স্মরণীয় দিন এই তিন কে নিয়ে অনেক জ্ঞানী-গুণী মানুষ বিভিন্ন রকম মুক্তি দিয়েছেন। অনেকেই মেয়ে দিবসের বিভিন্ন মনীষীদের উক্তি ইন্টারনেটে সন্ধান করেন। তাদের জন্য আমি কিছু উক্তি নিচে সংযুক্ত করলাম।

১| মে মাস চেতনায় পরিপূর্ণ, মধ্য গ্রীষ্মের সূর্যের মতো – উইলিয়াম শেক্সপিয়ার

২| মে দিবসে কোনও কর্মী খুঁজে কৃতজ্ঞতার সঙ্গে হ্যান্ডশেক করো। শ্রমিক না থাকলে কোনও সভ্যতা তৈরি করা যেত না – মেহমত মুরাত ইলিদান

৩| মে দিবস কোনও সাধারণ দিন নয় কারণ (Quotes For May Day In Bengali) এটি এমন এক দিন যা অসাধারণ মানুষ, শ্রমিকদের লালন করে – মেহমত মুরাত ইলিদান

৪| হঠাৎ যদি পুরো বিশ্বের সব শ্রমিক অদৃশ্য হয়ে যায় তবে বিশ্ব থমকে যাবে! আসুন আমরা সকলেই এটি অনুধাবন করি এবং আসুন শ্রমিকদের সম্মান করি – এই দুর্দান্ত মানুষরাই আমাদের বিশ্বকে এগিয়ে নিয়ে যায় – মেহমত মুরাত ইলিদান

৫| মে দিবসে নিজের সেরাটা দেওয়ার দিন – আর্নেস্ট ইবোহা

৬| কিছু পুরনো ফ্যাশনের জিনিসও অনেক সময় ফ্রেশ সূর্যের আলো নিয়ে আসতে পারে – লরা ইনগেলস ওয়াইলডার

৭| যদি কখনও শীতকাল না আসে, তাহলে বসন্তকালের সৌন্দর্য আমরা বুঝতে পারব না – অ্যানে ব্র্যাডস্ট্রিট

৮| আপনি সব ফুল নষ্ট করে দিতে পারেন, কিন্তু বসন্তের আগমনকে আটকাতে পারবেন না – পাবলো নেরুদা

৯| এটা পৃথিবীর একটা ভাল দিক। অনেক বসন্ত আসে  পৃথিবীতে – এল.এম. মন্টগোমারি

মে দিবসের শুভেচ্ছা বার্তা

যারা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে আমাদের দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখে তাদের প্রতি সম্মান জানানোর জন্য মে দিবস পালিত হয়ে আসছে। তাই মে দিবসের সকল শ্রমিকদের জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা। কঠিন পরিশ্রম এবং তাকে স্যালুট জানানোর দিন এই আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস তোমার পরিশ্রম কেও সম্মান জানালাম।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *