বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস; তারিখ, ইতিহাস,শুভেচ্ছা বার্তা, উক্তি, স্ট্যাটাস, ছবি

একটি দেশ, জাতি, সমাজের উন্নয়নের জন্য দেশের প্রতিটি নাগরিককে শিক্ষার আলোয় শিক্ষিত করা একান্ত প্রয়োজন। সমাজের শিক্ষার গুরুত্ব বোঝাতে এবং শিক্ষার উপর যে সকলের অধিকার আছে তা মনে করায় দেওয়ার জন্য বিশ্ব স্বাক্ষর দিবস পালন করা হয়। আপনি যদি বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান?  তাহলে, এই নিবন্ধটি আপনার জন্যই। এই নিবন্ধে বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস কবে?

সমাজের সকল স্তরের মানুষের কাছে শিক্ষা পৌঁছে দেওয়ার জন্য বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস পালন করা হয়। এই দিবসটি সকল মানুষ যাতে উদযাপন করতে পারে এজন্য দিবসটি নির্দিষ্ট তারিখ ঠিক করা আছে। দিবসটি প্রতিবছর ৮ সেপ্টেম্বর পুরো পৃথিবী ব্যাপী ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালন করা হচ্ছে।

বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের ইতিহাস

পৃথিবীর একটি মানুষও সাক্ষরতার বাইরে থাকবে না। টিপসই কে পৃথিবীব্যাপী নির্মূল করার জন্য বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস পালনের অন্যতম মূল লক্ষ্য ছিল। এই লক্ষ্য নিয়ে জাতিসংঘের শিক্ষা,  বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা ইউনেস্কো ঘোষিত একটি আন্তর্জাতিক দিবস পালনের ঘোষণা করা হয়। এরে আওতায় ১৯৬৬  সালের ২৬ শে অক্টোবর ইউনেস্কোর সাধারণ সম্মেলনের ১৪ তম অধিবেশনে ৮ = সেপ্টেম্বর তারিখে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৬৭ সালে প্রথমবারের মতো দিবসটি উদযাপিত হয়। দেবশ্রীর লক্ষ ব্যক্তি সম্প্রদায় এবং সমাজের কাছে সাক্ষরতার গুরুত্ব তুলে ধরা। বর্তমানে জাতিসংঘের সকল সদস্য এ দিবসটি পালন করে থাকে।

সাক্ষরতা দিবস স্লোগান

প্রতিটি দিবস পালনের মূল লক্ষ্য নিয়ে এর প্রতিপাদ্য বিষয় বা স্লোগান তৈরি করা হয়। স্লোগান তৈরি করার উদ্দেশ্য হচ্ছে দিবসটির মুহূর্তকে আরো বেশি ভাবে প্রস্ফুটিত করা। আর স্লোগান তৈরি করা হয় মূলত সমসাময়ীক বিষয় ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনা করে।

Literacy for a human-centred recovery: Narrowing the digital divide  

সাক্ষরতা কাকে বলে?

আভিধানিক অর্থে সাক্ষরতা হল অক্ষর পরিচিতি, লেখা ও পড়ার ক্ষমতা। অর্থাৎ যদি কোনাে ব্যক্তি কোনাে বিষয় পড়ে, সেটা লেখার মাধ্যমে প্রকাশ করতে সক্ষম হয় তাহলে তাকে সাক্ষর বলে।

বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের উক্তি

পৃথিবীব্যাপী সাক্ষরতার যে গুরুত্ব সেটি মনীষীগণ আগেই উপলব্ধি করতে পেরেছিল। সেই উপলব্ধি বোধ থেকেই বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের কিছু বিখ্যাত উক্তি বিখ্যাত বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গ দিয়ে গেছেন। আমরা এক নজরে সেই সকল কিছু উক্তি দেখে নিব।

“আমাদের মনে রাখার অনুমতি দিন: একটি ই বই, একটি কলম, একটি বাচ্চা, এবং একজন কোচ বিশ্বকে পরিবর্তন করতে পারে” ” – মালালা ইউসুফজি

২. “যে অধ্যয়ন করে না তার পড়াশোনা করতে পারে না তার লাভ নেই” ” – মার্ক টোয়েন

৩. “আপনি একজন ব্যক্তিকে শিক্ষিত করেন; আপনি একটি ব্যক্তি শিক্ষিত। আপনি একজন মহিলাকে শিক্ষিত

বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের শুভেচ্ছা বার্তা

পৃথিবীব্যাপী বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস কি আরশ সফলভাবে উদযাপন করার জন্য আপনি বিশ্ব সাক্ষরতা দিবস আপনার প্রিয়জনকে শুভেচ্ছা জানাতে পারেন। কিন্তু আপনার হয়তো এই মুহূর্তে কোন রকম শুভেচ্ছাবার্তা মনে হচ্ছে না। তাই আমি আপনাদের জন্য কিছু শুভেচ্ছাবার্তা সংযুক্ত করছি।এ শুভেচ্ছা বার্তা গুলো আপনি আপনার প্রিয়জনকে দিয়ে এই দিবস আরো সফলভাবে উদযাপন করতে সাহায্য করতে পারেন। বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের লক্ষ আরো সফলভাবে উদযাপিত হবে পৃথিবীতে বাংলাদেশ আরো মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে। তাই সাক্ষরতা দিবস সফল ভাবে উদযাপিত করার আপনার আমার সকলের দায়িত্ব।

শিক্ষার ক্ষেত্রে পাইল ভর্তি হওয়া উচিত নয়, তবুও একটি চতুর্দিকে আলো দেওয়া উচিত।—- বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের শুভেচ্ছা

শিক্ষার প্রথম দিকে সাফল্য আসে যখন বাবা বা মা এতে প্রবেশ করেন!———বিশ্ব সাক্ষরতা দিবসের শুভেচ্ছা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *